আরিফকে সমর্থন দিয়ে সরে দাঁড়ালেন সেলিম

প্রকাশ: ২০১৮-০৭-১৯ ৮:৩২:৪৯ পিএম
নোমান | রাইজিংবিডি.কম

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট : সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন ‘বিদ্রোহী’ বদরুজ্জামান সেলিম। তিনি বাস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়ছিলেন। নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ফলে তিনি ফিরে পেয়েছেন তার দলীয় পদও।

বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার দিকে আরিফুল হক চৌধুরীর বাসায় সংবাদ সম্মেলনে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, ‘‘সব কিছু ফায়সালার মালিক আল্লাহ। ভুল বোঝাবুঝির কারণেই আমাকে এতদিন পর্যন্ত মাঠে থাকা লাগলো।’’

তিনি বলেন, ‘‘আমার নেত্রীর প্রতি সম্মান দেখিয়ে, আমার নেতা তারেক রহমানের প্রতি সম্মান দেখিয়ে আমার বন্ধু আরিফুল হক চৌধুরীকে ধানের শীষে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।’’

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্যাহ আমানসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সেলিম আরো বলেন, ‘‘আমার নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত নিদের্শনা ছিল আমার মায়ের। বিএনপি আমার রক্তে, আমার মগজে, আমার মননে। দল থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত কবুল করে নিয়েছিলাম ঠিকই কিন্তু আমার বাসায় সারিবদ্ধভাবে আমার নেত্রী, আমার নেতার ছবি যেভাবে ছিল, সেভাবেই আছে। আমি যখন বাস মার্কায় নির্বাচনী প্রচারণা করে বাসায় আসতাম, তখন এগুলো দেখে চোখে পানি আসতো।’’

প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সঙ্গে সঙ্গেই বদরুজ্জামান সেলিমের বহিষ্কারাদেশ তুলে নিয়ে তাকে স্বপদে বহাল রাখা হয়েছে। এটা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নির্দেশে করা হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্যাহ আমান জানিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, ‘‘গতকাল আমরা বদরুজ্জামান সেলিমের বাসায় গিয়েছে। আজকে সকালে তার বাসায় সরকারের বিভিন্ন বাহিনী গেছে তাকে তুলে আনার জন্য। সেলিমের আন্তরিকতার কারণে সেটি সম্ভব হয়নি। তিনি দলকে ভালোবাসেন, খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়াকে ভালোবাসেন। আমরা আজ থেকে বদরুজ্জামান সেলিমের ও আরিফুল হক চৌধুরীর নিরাপত্তা চাই। তিনি যাতে কর্মী বাহিনী নিয়ে গণসংযোগ ও নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারেন।’’

সংবাদ সম্মেলনে বদরুজ্জামান সেলিমের মা জয়বুন নেছা খানম এবং স্ত্রী শামীম জাহান হেনা তার সঙ্গে ছিলেন। অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান খান, দলের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরসহ দলের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

সিসিক নির্বাচনে আরিফুল হক চৌধুরীকে বিএনপি তথা ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী বদরুজ্জামান সেলিম দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে প্রার্থী হন। এ কারণে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়।

পাশাপাশি জামায়াতে ইসলামীর মহানগর আমীর এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়েরও নির্বাচনে প্রার্থী হন। যে কারণে বেকায়দায় ছিলেন আরিফ।

নির্বাচনে ১৪ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। একক প্রার্থী হওয়ায় তিনি সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন।

বিএনপি সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, নির্বাচন থেকে বিরত রাখতে বদরুজ্জামান সেলিমের পাশাপাশি এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়েরকে ‘ম্যানেজ’ করার চেষ্টা চলছে।



রাইজিংবিডি/সিলেট/১৯ জুলাই ২০১৮/নোমান/বকুল

   
 



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

টোকিওতে জাতীয় শোক দিবস পালন

২০১৮-০৮-১৫ ৯:২৫:৫৯ পিএম

ইন্টেল প্রসেসরে নিরাপত্তা ঝুঁকি

২০১৮-০৮-১৫ ৮:০৩:২৪ পিএম

বাস-অটোরিকশার সংঘর্ষে ৩ জন নিহত

২০১৮-০৮-১৫ ৭:৩৭:৩৮ পিএম

কাবুলে আত্মঘাতী হামলায় নিহত ৪৮

২০১৮-০৮-১৫ ৭:২৯:০৮ পিএম