প্রসবের পর মিডলটন দ্রুত হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন কেন?

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-২৪ ৩:৪৮:৫৭ পিএম
মনিরুল হক ফিরোজ | রাইজিংবিডি.কম

লাইফস্টাইল ডেস্ক : অবশেষে সুখবর এল ব্রিটেনের রাজপরিবারে। ক্যাথরিন, ডাচেস অব কেমব্রিজ তার তৃতীয় সন্তান জন্ম দিয়েছেন। সোমবার লন্ডনের সেইন্ট মেরি হাসপাতালে স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ২ মিনিটে ৩ দশমিক ৮ কেজি ওজনের একটি ছেলেশিশুর জন্ম দেন তিনি।

সন্তান জন্মদানের মাত্র ৭ ঘণ্টা পর, প্রিন্স উইলিয়ামের সঙ্গে দুজন কেনসিংটন প্যালেসে ফিরেছেন।

কেট মিডলটনের জন্য প্রসবের পর এত স্বল্প সময়ের মধ্যে বাসায় ফেরাটা অস্বাভাবিক নয়। ২০১৩ সালে তিনি যখন প্রথম সন্তান প্রিন্স জর্জকে জন্ম দেন, তখন হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টার কিছু বেশি সময় ছিলেন। ২০১৫ সালে দ্বিতীয় সন্তান প্রিন্সেস শার্লটকে জন্ম দেওয়ার পর হাসপাতালে ছিলেন ১০ ঘণ্টা।

আমাদের সকলের কাছে সন্তান প্রসবের পর হাসপাতালে থাকার জন্য এটি অস্বাভাবিক কম সময় মনে হবে। ২০১৬ সালে পিএলওএস জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের নতুন মায়েরা স্বাভাবিক উপায়ে সন্তান প্রসবের পর গড়ে ২ দিন হাসপাতালে ছিলেন। তুলনামূলকভাবে যুক্তরাজ্যের নতুন মায়েরা সন্তান প্রসবের পর হাসপাতালে ছিলেন গড়ে দেড় দিন।

রয়াল কলেজ অব মিডওয়াইভের প্রসূতি বিশেষজ্ঞ লুইস সিলভারটন দ্য গার্ডিয়ানকে বলেন, ‘সন্তান প্রসবের পর হাসপাতালে থাকার সময়সীমা প্রত্যেক মায়ের নিজস্ব প্রয়োজনের ওপর নির্ভর করে।’ তিনি বলেন, ‘প্রসবের পর নতুন মা বাসায় ফেরার উপযোগী কিনা, এটা প্রসূতি বিশেষজ্ঞকে নিশ্চিত হতে হবে। নতুন মা মেডিক্যালি সুস্থ রয়েছেন, বাসায় ফেরার পর তার প্রয়োজনীয় সেবা- এসব ঠিক থাকলে প্রসবের পাঁচ বা ছয় ঘণ্টা পরই বাসায় ফেরা যায়।’

প্রসবের পর দ্রুত হাসপাতাল ত্যাগ করার আরেকটি কারণ শুধু ডাচেসদের জন্য নির্দিষ্ট। সেই কারণটি হচ্ছে, অপেক্ষমান জনতা। সকল নতুন মা তার সদ্যজাত শিশুর সঙ্গে একান্তে থাকেন। কিন্তু যখন সেই শিশুটি ব্রিটিশ মুকুটের পঞ্চম উত্তরাধিকারী হয়, তখন পুরো বিশ্বই প্রথম স্মৃতি হিসেবে তাকে দেখতে চায়। শিশু প্রিন্সের আগমন উপলক্ষে কয়েক সপ্তাহ আগে থেকেই ব্রিটেনের লোকজন হাসপাতালের দিকে ছুটেছে, যেমন ছুটে গিয়েছিল প্রিন্স জর্জ এবং প্রিন্সেস শার্লটের জন্মের সময়ও।

প্রিন্স উইলিয়াম ও প্রিন্সেস কেট মিডলটনের তৃতীয় সন্তান অর্থাৎ ব্রিটিশ সিংহাসনের পঞ্চম উত্তরাধিকারীকে দেখতে সেইন্ট মেরি হাসপাতালে সামনে জনসমুদ্র পরিণত হয়। ফটোগ্রাফাররা বিরতিহীন ভাবে ক্যামেরার শাটার চেপেছেন ডিউক এবং ডাচেস অব ক্যামব্রিজকে তাদের নতুন ছোট্ট প্রিন্সের সঙ্গে।

মিডলটন হাসপাতালে বেশি সময় অবস্থান করলে, বাইরে অপেক্ষমান উৎসুক জনতার ভিড় বেড়ে চলতো। বিশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এড়ানোর জন্য হাসপাতালে সংক্ষিপ্ত সেবা নেয়ার নেতিবাচক প্রভাব অবশ্য মিডলটনের ওপর পড়ার সম্ভাবনা নেই, কেননা কেনসিংটন প্যালেসে তার জন্য প্রসব পরবর্তীকালীন শীর্ষ চিকিৎসা ব্যবস্থার বন্দোবস্ত রয়েছে। একটি ফোন কলই যথেষ্ট তার প্রসব পরবর্তী সেবা পাওয়ার জন্য, তার জন্য সবসময় প্রস্তুত রয়েছে একটি মেডিক্যাল টিম।

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৪ এপ্রিল ২০১৮/ফিরোজ

   
 


Walton AC

আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

শাড়ির বন্দনায় কঙ্গনা

২০১৮-১২-১২ ৫:০০:৫৪ পিএম

‘আপন মন’

২০১৮-১২-১২ ৪:৩১:২৩ পিএম