সংসদ সদস্যদের তথ্য জানাতে চালু হচ্ছে ‘শর্ট ম্যাসেজ সার্ভিস’

প্রকাশ: ২০১৯-০১-১৭ ৮:৪৩:৫৭ এএম
হাসান মাহামুদ | রাইজিংবিডি.কম

সচিবালয় প্রতিবেদক : গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে গঠিত একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন বসবে আগামী ৩০ জানুয়ারি। একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনকে সামনে রেখে পুরোদমে প্রস্তুতি শুরু করেছে সংসদ সচিবালয়। এই অধিবেশন থেকেই সংসদ সদস্যদের জন্য ‘শর্ট ম্যাসেজ সার্ভিস’ চালু হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সংসদ অধিবেশন ও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক সম্পর্কে অবহিত করতে এই সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সংসদ অধিবেশনকে সামনে রেখে প্রস্তুতি শুরু করেছে সংসদ সচিবালয়। সংসদ ভবন ও অধিবেশন কক্ষ পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি ফুলের টব দিয়ে সাজানোর কাজ চলছে। অধিবেশন কক্ষের চেয়ার টেবিল সাজানোর পাশাপাশি সাউন্ড সিস্টেম পরীক্ষার কাজও চলছে। দাপ্তরিক অন্যান্য কাজও চলছে বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

তারা জানান, মন্ত্রী-এমপিদের কাছে দ্রুত ও সহজে এসএমএস পাঠাতে বা ‘শর্ট ম্যাসেজ সার্ভিস’ চালু করতে নতুন একটি সফটওয়্যার কেনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে সংসদ সংক্রান্ত তথ্যাদির পাশাপাশি নিজস্ব বিভিন্ন সভা, সেমিনার ও বৈঠকের বিজ্ঞপ্তিও জানতে পারবেন এমপিরা।  বর্তমানে একটি ডেস্কটপ বেইজ সফটওয়্যার থেকে টেলিটকের একটি সিমের মাধ্যমে এমপিদের দলীয় সভা, কমিটির বৈঠক, অন্যান্য সভা এবং সেমিনারের তারিখ, সময় ও স্থান এসএমএসের মাধ্যমে জানানো হয়। কিন্তু সফটওয়্যারটি অনেক পুরাতন। এটি এখন হালনাগাদও করা যাচ্ছে না। যা নিয়ে একটি সংকট চলছিল। এ নিয়ে অনেক এমপির অভিযোগ রয়েছে। সময় মতো তারা এসএমএস পান না বলেও অভিযোগ করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ওই সফটওয়্যারটির প্রধান সমস্যাগুলো হলো- এসএমএস খরচ বেশি এবং এসএমএস পাঠানো সময়-সাপেক্ষ। একই সঙ্গে ১৬০ ক্যারেক্টারের বেশি এসএমএস পাঠানো সম্ভব হয় না। শুধু ইংরেজিতে এসএমএস পাঠানো যায়। এজন্য এমপিদের রাষ্ট্রের অতীব গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ হিসেবে উল্লেখ করে নতুন সফটওয়্যার কিনবে সংসদ। এ সংক্রান্ত একটি চিঠি ইতিমধ্যে সংসদের প্রশাসন শাখায় পাঠানো হয়েছে।

৩০ জানুয়ারি বিকাল ৩টায় শুরু হবে অধিবেশন। নতুন সংসদের প্রথম এ বৈঠকে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হবে। এ ছাড়া সংসদের প্রথম ও নতুন বছরের প্রথম অধিবেশন হিসেবে এর প্রথম দিনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ভাষণ দেবেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তার সাংবিধানিক ক্ষমতা বলে গত ৯ জানুয়ারি এই অধিবেশন আহ্বান করেন। নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের গেজেট প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যে প্রথম অধিবেশন শুরুর সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

গত ১ জানুয়ারি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ীদের গেজেট প্রকাশ করা হয়। পরে ৩ জানুয়ারি এই নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নেন। নির্বাচনে বিজয়ী বিএনপির পাঁচজন ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দুজন এখনও শপথ নেননি। সংবিধানের বিধান অনুসারে প্রথম বৈঠকের দিন থেকে ৯০ দিনের মধ্যে কোনো নির্বাচিত সদস্য শপথ না নিলে পদ শূন্য হয়ে যাবে। পরে সেখানে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এবারের অধিবেশনের শুরুতেই স্পিকার নির্বাচন করবে সংসদ। বর্তমান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীই নতুন স্পিকার হিসেবে পুনরায় নির্বাচিত হবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে স্পিকার নির্বাচনের পর সংসদ সাময়িক সময়ের জন্য মুলতবি ঘোষণা করা হবে। এ সময় রাষ্ট্রপতি নতুন স্পিকারকে শপথ পড়াবেন। পরে নতুন স্পিকারের সভাপতিত্বে আবারও বসবে অধিবেশন। ওই সময় রাষ্ট্রপতি ভাষণ দেবেন। রাষ্ট্রপতির ভাষণের পর প্রথম দিনের কার্যক্রম সমাপ্ত হবে। পরে এই ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর সংসদ সদস্যরা দীর্ঘ বক্তব্য রাখবেন। সংসদের প্রথম বা বছরের প্রথম অধিবেশন সাধারণত দীর্ঘ হয়।

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৭ জানুয়ারি ২০১৯/হাসান/ইভা

   


Walton AC

আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

গুলি খাওয়ার আগে বিচার চাই : মিলা

২০১৯-০৪-১৮ ৪:৫৪:০২ পিএম

পদ্মায় ভেসে এলো পা বাঁধা লাশ

২০১৯-০৪-১৮ ৩:৩৩:৩৫ পিএম