কারামুক্ত নেতাদের মামলা প্রত্যাহার দাবি

প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১৩ ৬:৫৩:১৩ পিএম
মামুন খান | রাইজিংবিডি.কম

নিজস্ব প্রতিবেদক : কারামুক্ত নেতৃবৃন্দের নামে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার ও মজুরি বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত সমাবেশ থেকে এ দাবি জানায় সংগঠনটি।

গার্মেন্ট শ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা ঘোষণা এবং গার্মেন্ট টিইউসি’র সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান শামীমসহ সদ্য কারামুক্ত নেতৃবৃন্দ ও শ্রমিকদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবিতে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মন্টু ঘোষের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেনের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপমহাদেশের শ্রমিক আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা এবং বর্ষীয়ান শ্রমিক নেতা কমরেড মনজুরুল আহসান খান, গার্মেন্ট টিইউসি’র সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, শ্রমিক নেতা সাদেকুর রহমান শামীম, গার্মেন্ট শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের সমন্বয়ক মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অভিনু কিবরিয়া ইসলাম প্রমুখ।

মনজুরুল আহসান খান বলেন, বর্তমান বাজারদর এবং অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করলে শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি যা হওয়ার কথা শ্রমিকরা তার চেয়ে অনেক কম দাবি করেছে। তার পরেও মজুরি বৃদ্ধির পরিবর্তে শ্রমিকদের কণ্ঠ রোধ করতে হামলা-গ্রেপ্তার-ছাঁটাই-নির্যাতন শুরু হয়েছে। আন্দোলন দমনে মালিকপক্ষ ও সরকার হাতে হাত মিলিয়ে শ্রমিকদের বিরুদ্ধে নেমেছে।

তিনি বলেন, ইতিহাসের শিক্ষা হলো, ন্যায্য দাবির আন্দোলনের ওপর অতীতে যত জুলুম হয়েছে আন্দোলন তত শক্তি লাভ করেছে। তিনি বলেন, অতীতে বহু ‘কড়া স্বৈরাচার’ মালিকদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে শ্রমিক আন্দোলনের তোড়ে ভেসে গেছে।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে কমরেড মনজুর বলেন, ১৬ হাজার টাকা মজুরির দাবি শ্রমিকদের প্রাণের দাবিতে পরিণত হয়েছে। আন্দোলন দমনে গ্রেপ্তার-মামলা-নির্যাতনের পথ পরিহার করে অবিলম্বে গার্মেন্ট শিল্পে ১৬ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরি ঘোষণা করুন।

সভাপতির বক্তব্যে মন্টু ঘোষ মিথ্যা মামলায় গার্মেন্ট টিইউসি নেতৃবৃন্দকে কারাগারে প্রেরণের প্রতিবাদে সারাদেশে সব শিল্পাঞ্চলে স্বতঃস্ফূর্ত বিক্ষোভ আন্দোলনের জন্য শ্রমিকদের অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমরা নেতৃবৃন্দকে কারামুক্ত করেছি। একইভাবে দাবিও আদায় করা হবে।

জলি তালুকদার বক্তব্যে বলেন, যেসব মন্ত্রী, সচিব এবং আমলা মালিকদের টাকা খেয়ে নগ্ন ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে একদিন শ্রমিক মেহনতি মানুষের গণআদালতে তাদের বিচার হবে।

সমাবেশে সদ্য কারামুক্ত শ্রমিক নেতা জলি তালুকদার, সাদেকুর রহমান শামীম, জালাল হাওলাদার, কেএম মিন্টু, মঞ্জুর মঈন, লুৎফর রহমান আকাশ, মোহাম্মদ শাজাহানকে পুষ্পমাল্যে ভূষিত করা হয়। সমাবেশ থেকে অবিলম্বে একই মামলায় কারান্তরীণ আশিয়ানা গার্মেন্টের শ্রমিক রাসেল ও মুন্নার মুক্তি দাবি করা হয়। একই সঙ্গে ঢাকা বিভাগীয় রেজিস্ট্রার অব ট্রেড ইউনিয়ন কর্তৃক আশিয়ানা গার্মেন্ট শ্রমিক ইউনিয়নের নিবন্ধন আবেদন দ্বিতীয়বারের মতো প্রত্যাখ্যানের নিন্দা জানানো হয়।

সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল কদমফুল ফোয়ারা ঘুরে পল্টন মোড়ে এসে শেষ হয়।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ এপ্রিল ২০১৮/মামুন খান/মুশফিক

   
 



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

স্বপনকে ৭ টুকরো করে রত্মা ও পিন্টু

২০১৮-০৭-১৯ ১০:৩৯:৩৯ পিএম

সুযোগের অপেক্ষায় আল-আমিন

২০১৮-০৭-১৯ ১০:২১:১২ পিএম

রংপুরে সেই ওসি স্ট্যান্ড রিলিজ

২০১৮-০৭-১৯ ৯:৫৭:০২ পিএম

রিয়ালে এখন ফ্রি-কিক নেবেন কে?

২০১৮-০৭-১৯ ৮:৫৮:২২ পিএম
চাল আত্মসাৎ

খুলনায় ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

২০১৮-০৭-১৯ ৮:০৩:১৪ পিএম