পূর্বশত্রুতার জেরে গুলশানে জোড়া খুন

প্রকাশ: ২০১৮-০৩-২১ ৮:০৬:৫৯ পিএম
মাকসুদুর রহমান | রাইজিংবিডি.কম

মাকসুদুর রহমান : পূর্বশত্রুতার জেরে রাজধানীর গুলশানের কালাচাঁদপুরে গারো সম্প্রদায়ের দুই নারী বেসেত চিরান (৬৫) ও তার মেয়ে সুজাত চিরানকে (৪০) হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে ওই দুই নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দুটি পরিবারেরর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

বুধবার সন্ধ্যায় গুলশান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু বক্কর সিদ্দিক রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমাদের কাছে তথ্য আছে, নিহত সুজাতের বোনের ছেলে সঞ্জিতসহ চারজন ঘটনার দিন বিকেল ৪টায় ওই বাড়িতে আসে। তারা সন্ধ্যা ৬টার আগে বেরিয়ে যায়। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ নেওয়া হয়েছে। ফুটেজ দেখে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।’

কী কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘পূর্বশত্রুতার জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া নিহতদের ব্যক্তিগত সম্পর্ক, অবৈধ মেলামেশা কিংবা জমিজমা সংক্রান্ত কারণেও এ ঘটনা ঘটতে পারে। খুনিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের সঙ্গে গোয়েন্দাও কাজ করছে।’

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে সুজাতের মেয়ে মাধবীর স্বামী বাসায় গিয়ে দেখেন মূল ফটকের বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগানো। ছিটকিনি খুলে ভেতরে প্রবেশ করে শাশুড়ি সুজাতের গলাকাটা মরদেহ দেখতে পান তিনি। তখন সুজাতের তিন মেয়ে মাধবী, মায়াবী ও সুরভী বাসার বাইরে ছিলেন। আর ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরায় দেখা গেছে, সুজাতের বোনের ছেলে সঞ্জীব চার ব্যক্তিসহ বাসায় আসেন। তারা বেরিয়ে যাওয়ার পর হত্যাকাণ্ডের খবর জানাজানি হয়।

ঘটনাস্থলের আশপাশের লোকজন বলছেন, কালাচাঁদপুরের খানবাড়ী রোডের ক/৫৮ নম্বর বাড়ির চতুর্থ তলার ভাড়া বাসায় মা-মেয়ে থাকতেন। সুজাতের তিন মেয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। ঘটনার সময় তারা কর্মস্থলে ছিলেন। কোনোদিন ঝগড়া-বিবাদও শোনা যায়নি তাদের। তবে তারা লোকজনের সঙ্গে তেমন কোন কথা বলতেন না।

সুজাতের স্বামী আশীষ মানকিন বলেন, ‘আমি বাসায় এসে লাশ এবং পুলিশকে দেখতে পাই। নিহতদের সঙ্গে কারো কোনো শত্রুতার কথা আমার জানা নেই। লাশ ময়মনসিংহের গ্রামের বাড়িতে নেওয়া হবে।’

এদিকে বুধবার দুপুরে মা-মেয়ের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলে (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে। সুজাতের গলা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১৪টি ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। তবে মায়ের শরীরে অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক ডা. প্রদীপ বিশ্বাস জানিয়েছেন। হত্যাকাণ্ডে একাধিক ব্যক্তি জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বুধবার রাত ৯টার দিকে কালাচাঁদপুর এলাকার একটি বহুতল ভবনের ফ্ল্যাট থেকে বেসেথ চিরান ও সুজাত চিরান নামে মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ মার্চ ২০১৮/মাকসুদ/রফিক

   
 



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

সাহিত্য সংবাদ

২০১৮-০৯-২১ ৯:২১:২৩ এএম

নতুন লড়াইয়ে পুরনো উত্তাপ

২০১৮-০৯-২১ ৮:৩৭:২৯ এএম