মানসম্পন্ন বিদেশি ক্রিকেটার পাবে না বিপিএল

প্রকাশ: ২০১৮-০৮-১৪ ৩:৩২:৫২ পিএম
ইয়াসিন | রাইজিংবিডি.কম

ইয়াসিন হাসান : একই সময়ে হবে বিপিএলের ষষ্ঠ এবং বিগ ব্যাশের অষ্টম আসর। এ ছাড়া বছরের শুরুতেই রয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত সূচি। বিপিএলে তাই মানসম্মত বিদেশি ক্রিকেটার না পাওয়ার জোর সম্ভাবনা রয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না, এতে জৌলুস হারাবে বিপিএল!

প্রতিটি দেশই এখন টি-টোয়েন্টি লিগ আয়োজন করতে ব্যস্ত। বাণিজ্যিকভাবে এ টুর্নামেন্ট লাভজনক ইভেন্ট হওয়ায়, প্রতি বর্ষপঞ্জিকায় এ টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য থাকে আলাদা জানালা। সবশেষ দেশ হিসেবে আফগানিস্তানও আইসিসির কাছ থেকে টি-টোয়েন্টি লিগের অনুমোদন পেয়েছে।



আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ (এপিএল) টি-টোয়েন্টি হবে আগামী ৫ থেকে ২১ অক্টোবর সংযুক্ত আরব আমিরাতে। পাঁচ দলের টুর্নামেন্টে বিদেশি খেলোয়াড়দের খেলার ব্যাপারে কোনো আপত্তি নেই আইসিসির।

মূলত ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) হাত ধরে টি-টোয়েন্টি লিগের বাণ্যিজিক উত্থান। ২০০৮ সালে আইপিএলের যাত্রা শুরু হওয়ার পর নড়েচড়ে বসে বাকি দেশগুলো। ২০১১ সালের আগস্টে এসপিএল, ডিসেম্বরে বিগ ব্যাশ, ২০১২ সালের নভেম্বরে বিপিএল, ২০১৩ সালের জুলাইয়ে সিপিএল, ২০১৬ সালে পিএসএলের যাত্রা শুরু হয়। এর মধ্যে শুধু এসপিএল প্রথম বছর হওয়ার পর আর হয়নি। শোনা যাচ্ছে চলতি বছরের অক্টোবরে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড আবারো শুরু করবে এসপিএল।

 



আন্তর্জাতিক সূচি মেনে টি-টোয়েন্টি লিগ আয়োজন করা দেশগুলো নিজেরা একটি বর্ষপঞ্জিকা আইসিসির বোর্ড সভায় দিয়েছিল। সেই বর্ষপঞ্জিকা অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি-মার্চে পিএসএল, এপ্রিল-মে’তে আইপিএল, জুলাই-আগস্ট-সেপ্টেম্বরে টি-টোয়েন্টি ব্ল্যাস্ট, আগস্ট-সেপ্টেম্বরে সিপিএল, নভেম্বর-ডিসেম্বরে বিপিএল, ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে বিগ ব্যাশ এবং একই সময়ে নিউজিল্যান্ডে হবে সুপার স্ম্যাশ টুর্নামেন্ট।

আইপিএল থেকে শুরু করে বিগ ব্যাশ, পিএসএল, সিপিএল সুন্দর অবকাঠামো এবং নির্দিষ্ট পরিকল্পনায় এগোলেও বিপিএলের শুরু থেকেই ছিল অনিয়ম, অপরিকল্পনা। তবে বর্তমান বোর্ড দায়িত্ব নেওয়ার পর সঠিক পথেই এগোতে থাকে বিপিএল। কিন্তু এবারের বিপিএলে আবারো একই অবস্থা।

 



শুরুতে জানানো হয়েছিল ৫ অক্টোবর থেকে ১৬ নভেম্বর পর্যন্ত হবে বিপিএল। সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে গত ২৯ জুলাই সিদ্ধান্ত হয়, ৫ জানুয়ারি মাঠে গড়াবে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর। ৩৫ দিনের টুর্নামেন্টের পর্দা নামবে ৮ ফেব্রুয়ারি। বিসিবির পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস আশা করছেন, ৫ জানুয়ারি বিপিএল শুরু করতে পারবে বোর্ড। অংশগ্রহণকারী দলগুলোও নিজেদের প্রস্তুতি শুরু করেছে।

এ ছাড়া অক্টোবরে হবে বিপিএলের খেলোয়াড় ড্রাফট। আগের আসর থেকে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা ৪ জন করে খেলোয়াড় ধরে রাখতে পারবে। দেশি এবং বিদেশি খেলোয়াড় মিলিয়ে চারজন। চাইলে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা চারজনই দেশি খেলোয়াড় রাখতে পারবে, আবার চাইলে চারজন বিদেশি খেলোয়াড় রাখতে পারবে। ফ্র্যাঞ্চাইজি যেভাবে চাইবে, সেভাবে ৪ জন ‘রিটেইন’ করতে পারবে।

 



কিন্তু টি-টোয়েন্টির এই জমজমাট আসর জানুয়ারি-ফ্রেবুয়ারিতে হলে বিদেশি মানসম্মত ক্রিকেটারদের পাওয়া যাবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কা থাকছেই। ৫৯ ম্যাচের বিগ ব্যাশ শুরু হবে ১৯ ডিসেম্বর, শেষ হবে ১৭ ফেব্রুয়ারি।

আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্লান (এফটিপি) অনুযায়ী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ে এবং আফগানিস্তান দলের আন্তর্জাতিক কোনো খেলা নেই। এ ছাড়া টেস্ট খেলুড়ে প্রতিটি দেশেরেই আন্তর্জাতিক ম্যাচ রয়েছে।

ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে ভারত অস্ট্রেলিয়া সফর করবে। ভারতকে আতিথেয়তা দেওয়ার পরপরই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ঘরের মাটিতে দুটি টেস্ট খেলবে অস্ট্রেলিয়া। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজটি শুরু হবে জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহ থেকে। ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৩ টেস্ট, ৫ ওয়ানডে এবং ৩ টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে। নিউজিল্যান্ড-ভারতের ৫ ওয়ানডে ও ৩ টি-টোয়েন্টি সিরিজ হবে জানুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহ থেকে। পাকিস্তান-দক্ষিণ আফ্রিকার ৩ টেস্ট, ৫ ওয়ানডে এবং ৩ টি-টোয়েন্টি শুরু হবে ডিসেম্বর থেকে।  দ্বিপক্ষীয় সিরিজটি চলবে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। 

 



সব মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বেশ ব্যস্ত থাকবেন ক্রিকেটাররা। বিপিএলে বিদেশি ক্রিকেটারদের সবচেয়ে বড় অংশগ্রহণ পাকিস্তান থেকে। সেই পাকিস্তানের তারকা ক্রিকেটাররা এবার নেই বললেই চলে। ‍মোহাম্মদ আমির, হাসান আলী, বাবর আজম, সরফরাজরা তিন ফরম্যাটের ম্যাচেই খেলছেন। অবসরে যাওয়া শহীদ আফ্রিদিকে অবশ্য পাওয়া যাবে। টেস্ট না খেলা শোয়েব মালিককেও পাওয়া যাবে কিছুটা সময়।

বিপিএলের থেকে বিগ ব্যাশে অর্থের ঝনঝনানি আর বিনোদনের পসরা বেশি। ক্রিকেটারদের নজরও থাকবে। তেমনই একজন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। প্রাক্তন কিউই অধিনায়ক বিগ ব্যাশের নিয়মিত খেলোয়াড়। বিগ ব্যাশ ছেড়ে কি বিপিএলে আসবেন ম্যাককালাম? মারলন স্যামুয়েলস, কাইরন পোলার্ড, ডোয়াইন ব্রাভো, আন্দ্রে রাসেল, জফরা আর্চার কিংবা কার্লোস ব্রাফেট বিগ ব্যাশ খেলছেন নিয়মিত। তাদেরকেও বিপিএলেও পাওয়া যাবে কি না, তা নিয়ে রয়েছে শঙ্কা।

শুধু খেলোয়াড় নয়, জানুয়ারিতে বিপিএল হলে বিপাকে পড়বে রাজশাহী কিংস। দলটি এরই মধ্যে কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে ড্যানিয়েল ভেট্টোরিকে। ভেট্টোরি বিগ ব্যাশের দল ব্রিসবেন হিটেরও কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাকেও কি পাওয়া যাবে?

 



সব মিলিয়ে বিপিএল হবে শুধু টেস্ট খেলুড়ে বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটারদের নিয়ে। তবে আইসিসির সহযোগী দেশগুলোর ক্রিকেটারদের পাওয়া যাবে। উচুঁমানের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের ছাড়া বিপিএল জৌলুস হারাতে পারে! নতুন নিয়ম অনুযায়ী ফ্র্যাঞ্চাইজিরা সর্বোচ্চ  ৮ বিদেশি ক্রিকেটার দলে নিতে পারবে। মানসম্মত ৮ খেলোয়াড় কি পাবে ফ্রাঞ্জাইজিগুলো? সবকিছু বিবেচনা করেই বিপিএলের ভবিষ্যৎ ঠিক করতে হবে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল ও বিসিবিকে।

তবে বিসিবিও নিরুপায়। জানুয়ারি বাদে ফাঁকা স্লট পাচ্ছে না বিসিবিও। বিসিবির পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেছেন, ‘বিপিএল ৫ জানুয়ারিতে শুরু হবে। সেই তারিখটিই থাকছে। এখন আমাদের আর কিছু করার নেই। জাতীয় দল নিউজিল্যান্ডে যাবে। এর আগে কোনো স্লট নেই। ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচন। নভেম্বরে নির্বাচনী প্রচরণা শুরু হবে। এই কারণে একটি সেফ সাইড চিন্তা করে আমরা ৫ জানুয়ারি ঠিক করেছি। একটা অসুবিধা হতে পারে যে, আমরা অনেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারকে পাচ্ছি না। তাদের অনেকের ব্যস্ত সূচি থাকতে পারে। তবে এর মধ্যেই আমাদের মানিয়ে নিতে হবে।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ আগস্ট ২০১৮/ইয়াসিন/পরাগ

   
 



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ

তামিম ফিরছেন, সাকিবকে পাওয়ার আশা

২০১৮-১১-১৩ ৯:২৯:৩৮ পিএম