করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত নার্সারি মালিকরা

প্রকাশ: ২০২০-০৫-২৩ ১:৩৫:০৮ পিএম
ফরহাদ হোসেন | রাইজিংবিডি.কম

‘দেলোয়ার নার্সারি’র মালিক দেলোয়ার হোসেন। লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার লাহারকান্দি গ্রামের বাসিন্দা তিনি। করোনা প্রাদুর্ভাবের আগে তার ব্যবসায়িক পুঁজি ছিল দেড় লাখ টাকা। নগদ ছিল ৩০ হাজার, বিভিন্ন প্রজাতির ফুল, ফল ও বনজ গাছের চারা ছিল ১ লাখ ২০ হাজার টাকার। করোনার কারণে ঘুরে ঘুরে চারা বিক্রি করতে পারছেন না। ব্যবসায়িক পুঁজির টাকায় সংসার চালাচ্ছেন।

এদিকে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও অতিবৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে গেছে বেশকিছু গাছের চারা। অন্যদিকে, নির্দিষ্ট সময়ে বিক্রি করতে না পারায় বীজতলায় অনেক চারার বয়স পার হয়ে গেছে। অবশিষ্ট চারাগুলো কম দামে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহের কথা ভাবছেন দেলোয়ার। তবুও মিলছে না গ্রাহক। এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন এই নার্সারি উদ্যোক্তা।   

শুধু লাহারকান্দি গ্রামের দেলোয়ার নন, এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিক, ভ্যানচালক ও মৌসুমি চারা বিক্রেতারা খুব কষ্টে আছেন। এভাবে চলতে থাকলে লোকসানের পাশাপাশি পুঁজি সংকটেও পড়তে হবে নার্সারি মালিকদের।
 


দেলোয়ার হোসেন রাইজিংবিডিকে জানান, ছোটবেলা থেকেই নার্সারি ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত তিনি। অন্যের জমি ইজারা নিয়ে গড়ে তুলেছেন নার্সারি। নার্সারিতে বীজতলা প্রস্তুত ও চারা পরিচর্যা করেন দুজন শ্রমিক। চারাগুলো হাটবাজার ও গ্রামে ঘুরে ঘুরে বিক্রি করা হয়। সে আয় দিয়েই কর্মচারীদের বেতন, নার্সারি ও সংসারের খরচ চালাতেন দেলোয়ার। মা, স্ত্রী ও পাঁচ সন্তানকে নিয়ে ভালোই চলছিল তার। করোনার কারণে ঘরের বাইরে যেতে পারছেন না। অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে চারাগুলো। বেতন দিতে না পেরে ছাঁটাই করেছেন শ্রমিকদের।

তিনি বলেন, এভাবে চললে নার্সারি বাদ দিয়ে অন্য ব্যবসায় সম্পৃক্ত হতে হবে। অন্যথায়, জীবিকা নির্বাহ কষ্টকর হয়ে পড়বে।

জেলার রায়পুর পৌর শহরের একাধিক নার্সারি মালিকরা রাইজিংবিডিকে বলেন, করোনা দুর্যোগে প্রতিদিনই পুঁজি হারাচ্ছেন নার্সারি ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্তরা। তাই নার্সারি মালিকদের প্রণোদনা দেওয়া উচিত। তা না হলে বহু নার্সারির মালিক এ পেশা ছেড়ে দেবেন।

 

লক্ষ্মীপুর/ফরহাদ/রফিক


     



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস আজ

২০২০-০৫-৩১ ১২:৪২:০৮ এএম

ইতালিতে আবারও বাড়ছে করোনায় ‍মৃত্যু

২০২০-০৫-৩০ ১১:৫৪:০৮ পিএম

গণপরিবহনে কড়াকড়ি

২০২০-০৫-৩০ ১১:২৫:৪১ পিএম