‘চাকরিনামা’ নিয়ে বইমেলায় হারুন পাশা

প্রকাশ: ২০১৯-০২-২৭ ৫:০৮:৪৬ পিএম
সাইফ | রাইজিংবিডি.কম

রাইজিংবিডি ডেস্ক : অমর একুশে বইমেলায় (২০১৯) প্রকাশিত হয়েছে কথাসাহিত্যিক হারুন পাশার নতুন উপন্যাস ‘চাকরিনামা’।

নতুন উপন্যাসের টপিক হিসেবে চাকরি প্রত্যাশিত বেকারদের কেন বেছে নিলেন-এ বিষয়ে হারুন পাশা বলেন, সমাজে বেকাররা নিম্নবর্গ। ফলে তাদের স্বর পৌঁছায় না সমাজ, দেশ, পরিবার, বন্ধুবান্ধব এমনকি প্রেমিকার কাছেও। তারা অনার্স-মাস্টার্স শেষ করার পরও সমাজে অবহেলিত, বঞ্চিত এবং অপমানের এক জীবন অতিবাহিত করে। দেশে যে হারে বেকারের সংখ্যা বাড়ছে সে তুলনায় কর্মের সুযোগ কম। ফলে হতাশা আর যন্ত্রণা তাদের চারপাশ ঘিরে রাখে। বেকারের মেধা ও প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও সুযোগের অভাবে এর প্রয়োগ করতে পারছে না। চাকরি-বাকরি না থাকায় বেকাররা যে যন্ত্রণাবিদ্ধ সময় পার করে তা আমাকে ব্যথাহত করে। তাদের জীবন নিয়ে লেখার চেষ্টায় নিজেকে যুক্ত করি। আমি চাই বেকাররা রাষ্ট্র, সমাজ, পরিবারে বেকারদের সম্মান বাড়ুক।

উপন্যাসটি এবারের বইমেলায় অন্য বইগুলোর চেয়ে আলাদা হবে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে হারুন পাশা বলেন, উপন্যাসটি বিষয় ভাবনাতেই ইউনিক। অন্যদের থেকে আলাদা। কেবল চাকরি প্রত্যাশীদের নিয়ে পুরো একটি উপন্যাস ‘চাকরিনামা’র আগে লেখা হয়নি। এর আগে পাওয়া গেছে উপন্যাসের ভেতর স্বল্প পরিসরে আসা বেকার চরিত্র। এর সাথে উপন্যাসে যোগ হয়েছে কোটা সংস্কার আন্দোলন। এ নিয়েও এর আগে কেউ উপন্যাসে লিখেননি। ‘চাকরিনামা’তেই এসেছে এ টপিক।

উপন্যাসে কতগুলো গদবাঁধা বিষয় থাকে, চাকরিনামায় কি ট্রাডিশনাল কাঠামোতে রচিত এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমার উপন্যাস গদবাঁধা রীতিতে লিখিত নয়। বাংলা উপন্যাসের প্রচলিত বর্ণনারীতিতে লেখকই বর্ণনা করেন কাহিনি এবং মাঝে মাঝে চরিত্রের সংলাপ দেন। আমি গল্প-উপন্যাসে এ রীতি ব্যবহার করি না। আমার লেখায় চরিত্ররাই সব। তারাই যাপিত জীবনের ব্যাখ্যাকারক। তারাই বলবে নিজেদের কথা এবং চরিত্রের কথনেই উপন্যাসটি এগিয়ে যাবে শেষ পৃষ্ঠা পর্যন্ত।’

উত্তরাধুনিককালের উপন্যাস হিসেবে, সমসাময়িককালের কি কি ধরনের ছাপ বা বিষয় দেখতে পাব-এ বিষয়ে হারুন পাশা বলেন, আখ্যানে সমসাময়িককাল বলতে বর্তমানে সমাজে বিদ্যমান বড় এক সমস্যার কথা আছে উপন্যাসে। এ সমস্যা হলো বেকারত্ব। বেকার জীবনের বিচ্ছিন্নতাবোধ, সংকট, স্বপ্ন আর সম্ভাবনার আখ্যান আছে উপন্যাসটিতে। মাহিন, আয়ান, জামসেদ, আনাফ বেকারদের প্রতিনিধিত্ব করছে। আলোকপাত আছে বিসিএস ক্যাডারের বৈচিত্র্য ও কর্ম-ক্ষমতার ওপর। বিবিধ চাকরি জীবনের বিচিত্র ফজিলতের ওপর বিস্তারিত বয়ানও হাজির। সাক্ষাৎকারের মধ্য দিয়েও বক্তব্য প্রাসঙ্গিক করা যায়, তারও নান্দনিক ব্যবহার চোখে পড়বে। উপন্যাস সমাপ্ত হয়েছে আশাবাদের আলো ছড়িয়ে।

অনিন্দ্য প্রকাশ থেকে বের হওয়া বইটির প্রচ্ছদ করেছেন তৌহিন হাসান। ১৬০ পৃষ্ঠার বইটির দাম ৩০০ টাকা।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯/সাইফ

     



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

প্রেমিককে ফাঁসাতে গিয়ে …

২০২০-০২-২১ ৯:৪০:৪১ পিএম

কতজন পেসার নিয়ে খেলবে বাংলাদেশ?

২০২০-০২-২১ ৮:৪০:১৬ পিএম

দিনাজপুরে চার ডাকাত আটক

২০২০-০২-২১ ৮:৩০:৩৫ পিএম

ডমিঙ্গোর কিছু বলার আছে...

২০২০-০২-২১ ৭:৫১:০৮ পিএম

ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

২০২০-০২-২১ ৭:৪৬:০৩ পিএম

আল্লাহর দলের তিন সদস্য গ্রেপ্তার

২০২০-০২-২১ ৭:৪৪:৪২ পিএম