শিবলিঙ্গের মাথায় মাস্ক

প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৪ ৮:২৫:৫৬ এএম
শাহিদুল ইসলাম | রাইজিংবিডি.কম

সমাজের নানা অন্যায়-অসঙ্গতির বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের প্রতিবাদের ধারা সব সময় চলমান। কিন্তু অধিকাংশ সময় দেখা যায় এই প্রতিবাদের কথা শাসকশ্রেণী শুনেও না শোনার ভাণ করে। তবে প্রতিবাদের ধরন যদি অভিনব হয়, প্রতিবাদের ভাষায় যদি নতুনত্ব থাকে তবেই টনক নড়ে প্রশাসনের। এ কারণে ভারতীয় আইনজীবী রবিকান্ত বিশ্বকর্মা তার চারপাশে ঘটে চলা অন্যায়-অসঙ্গতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে বেছে নিয়েছেন কিছু অভিনব পন্থা।

ভারতের উত্তর প্রদেশের বারানসি শহরের বাসিন্দা রবিকান্ত আইন পেশার পাশাপাশি রাজনীতিকও বটে। তিনি বারানসি পৌরসভার কাউন্সিলর। বেশ কয়েক বছর ধরে অভিনব কায়দায় বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিবাদ করে আসছেন। সাম্প্রতিক সময়ে তার এই ভিন্নধর্মী প্রতিবাদের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

একটি ছবিতে দেখা যায় রবিকান্ত ড্রেনের পানির মধ্যে পরিবার নিয়ে বসে চা পান করছেন। এই ধরনের ছবি তোলার কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, বারানসি শহরের রাস্তা প্রায় ড্রেনের ময়লা পানিতে ডুবে থাকতে দেখা যায়। কিন্তু এই বিষয়ে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা কোন ব্যবস্থা নেন না। ফলে মাঝে মাঝে পরিস্থিতি এমন হয়ে দাঁড়ায় যে- শহরের বাসিন্দারা ময়লা পানি ডিঙিয়ে মন্দিরে পর্যন্ত যেতে পারে না। তাই তিনি এই ছবির মাধ্যমে বোঝাতে চেয়েছেন, পরিস্থিতি দিনে দিনে এতটাই ভয়াবহ হচ্ছে,  না জানি কবে এভাবেই ড্রেনের পানির মধ্যে বসবাস করতে হয়।

আরেকটি ছবিতে দেখা যায়, রবিকান্ত ছোট একটি প্লাস্টিকের ভেলায় করে রাস্তায় ভেসে বেড়াচ্ছেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ভারতের অনেক শহরের মতো বারানসির রাস্তাঘাটও অল্প বৃষ্টিতে ডুবে যায়। সৃষ্টি হয় ভয়াবহ জলাবদ্ধতার। কিন্তু এই বিষয়ে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা একেবারেই নির্বিকার। তাই আমি এটা দেখাতে চেয়েছি যে, তড়িৎ ব্যবস্থা না নিলে ঐতিহাসিক এই শহরের অবস্থাও জাপানের কিয়েটো শহরের মতো হবে।

অন্য একটি ছবি তাকে শিবলিঙ্গের মাথায় মাস্ক পরাতে দেখা যায়। তিনি মূলত এই কাজের দ্বারা সারা ভারতের তীব্র বায়ু দূষণকে ইঙ্গিত করেছেন। তিনি বলেন, দিন দিন ভারতের বায়ু দূষণের পরিমাণ বেড়েই চলেছে। অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, এই দেশে এখন দেবতারাও নিরাপদ নয়।

আরেকটি ছবিতে রবিকান্তকে তার স্ত্রীর গলায় মালা পরাতে দেখা যায়। ছবিটির শিরোনাম তিনি দিয়েছেন ‘বৈধ স্বামী-স্ত্রী’। এই ছবির দ্বারা তিনি উত্তর প্রদেশ সরকারের এন্টি রোমিও স্কোয়াড বা প্রেম প্রতিরোধ কমিটির বিরোধিতা করেছেন। কারণ সাম্প্রতিক সময়ে উত্তর প্রদেশের বেশ কিছু জায়গায় প্রেম করার অপরাধে বেশ কিছু ছেলেমেয়েকে বিশেষ করে মুসলিম ছেলেমেয়েকে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। এন্টি রোমিও স্কোয়াড বা প্রেম প্রতিরোধ কমিটি সম্পর্কে তিনি বলেন, একুশ শতকে এসে প্রেম করা বা সঙ্গী বাছাইয়ের স্বাধীনতা সব মানুষেরই আছে। এই ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করাটা অবান্তর। বর্তমানে উত্তর প্রদেশের অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, পথে ঘাটে আপনাকে স্বামী-স্ত্রীর প্রমাণ দেখাতে হচ্ছে।

এইসব অভিনব প্রতিবাদে প্রথম দিকে মানুষ হাসিহাসি করলেও বর্তমানে অনেকেই তাকে সমর্থন দেন। কারণ তারা রবিকান্তের এই প্রতিবাদের সুফল পেতে শুরু করেছেন। তারা বুঝতে পারছেন- অভিনব এমন প্রতিবাদই  শাসকশ্রেণীর ঘুম ভাঙাতে পারে।

 

ঢাকা/তারা


   



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

ক্লাসিকোর আগে হোঁচট খেল বার্সা

২০১৯-১২-১৫ ১২:৪৬:৪০ এএম

মিস ওয়ার্ল্ড হলেন মিস জ্যামাইকা

২০১৯-১২-১৫ ১২:২২:৩৬ এএম

সান্তোকির নো বল আইসিসি ‘দেখছে’

২০১৯-১২-১৪ ১০:৫২:৫৮ পিএম

মাশরাফি-হাসান-এনামুলে ঢাকার জয়

২০১৯-১২-১৪ ১০:৪৯:১৬ পিএম

‘পরিচালকের টয়লেটও কি এমন নোংরা’

২০১৯-১২-১৪ ১০:০৭:৫৪ পিএম

পুলিশ ও সাইফের অঘোষিত ফাইনাল

২০১৯-১২-১৪ ৯:১৪:৫৫ পিএম