রোমান্টিকতায় বাধা হতে পারে সোশ্যাল মিডিয়ার যেসব অভ্যাস

প্রকাশ: ২০১৯-০৮-১৯ ৬:৫৬:৩৪ পিএম
আহমেদ শরীফ | রাইজিংবিডি.কম

প্রতীকী ছবি

আহমেদ শরীফ : বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়া যেন  বেশিরভাগ মানুষের জীবনই কঠিন হয়ে পড়েছে। নিজেদের ছবি শেয়ার করা, বন্ধুদের স্ট্যাটাসে কমেন্ট করা, নতুন বন্ধু গড়ে তোলা এমনকি অনলাইনে ভালোবাসাও যেন একটা স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এক কথায় সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে।

তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশি সময় কাটানো যেমন ক্ষতিকর, তেমনি সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু বদভ্যাস আপনার সুন্দর রোমান্টিক সর্ম্পকও নষ্ট করে দিতে পারে। চলুন জেনে নেই সেসব বদভ্যাসের কথা।

অনুমতি না নিয়ে ছবি পোস্ট করা : অনুমতি না নিয়ে আপনার প্রেমিক বা প্রেমিকার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে তিনি তা অপছন্দ করতেই পারেন। অনেকেই নিজের ছবি ফেসবুক বা অন্য কোনো সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না।অনুমতি ব্যতীত ছবি পোস্ট নিশ্চিতভাবেই সম্পর্কের গোপনীয়তা ভঙ্গ করে।

সব সময় ও বেশি পোস্ট করা : প্রতিদিন কাউকে বেশি পোস্ট দিতে দেখে কি আপনি নিজেও বিরক্ত বোধ করেন না? তাহলে ভাবুন, যদি আপনি এমনটা করেন, তাহলে আপনার পার্টনার বা বন্ধুরা সেটা কিভাবে নেবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাকটিভ বা কানেক্টেড থাকা ভালো, তবে প্রায় প্রতিদিনই ছবি পোস্ট করা বা নতুন নতুন স্ট্যাটাস দেয়া অনেকের জন্যই বিরক্তিকর। এটি আপনার প্রেমিক/প্রেমিকাকেও বিরক্ত করতে পারে।

ব্যক্তিগত বিষয়ে কথা বলা : আপনার পার্টনারের সঙ্গে কোনো বিষয়ে বিতর্ক হলে বা দ্বিমত দেখা দিলে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা করা বুদ্ধিমানের কাজ না। এছাড়া কোনো সুখবর (হতে পারে আপনার অফিসে প্রমোশন হওয়ার খবর) প্রথমেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলে পার্টনার ধরে নিতে পারেন তার চেয়ে সোশ্যাল মিডিয়াকেই বেশি প্রাধান্য দেন আপনি। বিষয়টা দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

স্ট্যাটাসের ভুলগুলো : আপনার পোস্টে যদি বানান ও গ্র্যামাটিক্যাল ভুল থাকে সব সময়, তাহলে বন্ধুদের পাশাপাশি আপনার প্রেমিক/প্রেমিকাও আপনার কাছ থেকে দূরে সরে যাবেন। এছাড়া এসএমএস ল্যাঙ্গুয়েজ, বিশেষ করে ‘কে’, ‘সি ইয়া’, ‘আর ও এফ এল’, ‘এল এম এ ও’ এসব পার্টনারের মন জয় করতে পারবে না ধরে নিতে পারেন।

ডেটিংয়ের সময় মোবাইলে বুঁদ থাকা : যদি পার্টনারকে নিয়ে ডেটিংয়ে কোয়ালিটি টাইম কাটাতে গিয়েও মোবাইলের স্ক্রিনে বুঁদ থাকেন, তাহলে তা পার্টনারকে অপমান করাই হবে। এতে তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠতে পারেন।

পুরোনো ভালোবাসাকে জাগিয়ে তোলা : আপনার পুরোনো প্রেমিক/প্রেমিকার ছবি পোস্ট করা, তাকে নিয়ে স্ট্যাটাস দেয়া বর্তমানের ভালোবাসার মানুষ মোটেও সহজভাবে নেবেন না, এটা মনে রাখতে হবে।

পার্টনারকে সন্দেহ করা : প্রত্যেকেরই কিছু ব্যক্তিগত সময় থাকা চাই। ফেসবুকে ভালোবাসার মানুষের সব পোস্ট নিয়ে প্রশ্ন করা,  কমেন্ট করা ঠিক না। এটি তিনি ভালোভাবে নাও নিতে পারেন। ভালোবাসার মানুষের ফেসবুক বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ার পাসওয়ার্ড চাওয়া, তার অনুপস্থিতিতে মোবাইল ফোন চেক করা, এসব আপনার ভালোবাসার সম্পর্ককে পুরোপুরি নষ্ট করে দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৯ আগস্ট ২০১৯/ফিরোজ


   



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

টস জিতে বোলিংয়ে বাংলাদেশ

২০১৯-০৯-২১ ৬:০৭:১৩ পিএম

শফিকুল ১০ দিনের রিমান্ডে

২০১৯-০৯-২১ ৫:২৫:১০ পিএম

বাবার সাথে ঢাকার পথে মিন্নি

২০১৯-০৯-২১ ৫:২২:২৮ পিএম

কাল থেকে জাবির ভর্তি যুদ্ধ শুরু

২০১৯-০৯-২১ ৫:১৯:১২ পিএম