সম্প্রচার আইন পাস হলে চাকরি সুরক্ষা হবে

প্রকাশ: ২০১৯-১০-২৪ ৮:৩৮:০১ পিএম
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক | রাইজিংবিডি.কম

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে সম্প্রচার নীতিমালা হয়েছে। সম্প্রচার আইন যদি আমরা পাস করতে পারি, কর্মীদের চাকরি সুরক্ষা হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কাকরাইলে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট (পিআইবি) সেমিনার হলে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টার (বিজেসি)  আয়োজিত ‘সম্প্রচার মাধ্যমের সংকট’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, নবম ওয়েজবোর্ডে স্পষ্ট বলা আছে, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের জন্য একটি আলাদা নীতিমালা করতে হবে। আমি মনে করি নবম ওয়েজবোর্ডের সুপারিশের আলোকে একটি নীতিমালাও করা প্রয়োজন। যাতে করে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার শ্রমিক, কর্মচারী, সাংবাদিক সবার জন্য আইনি সুরক্ষা থাকে। সে লক্ষ্যে আপনাদের সাথে নিয়ে আমি কাজ করব। সম্প্রচার আইন ও গণমাধ্যমকর্মী আইন নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। আমরা আশা করব, খুব তাড়াতাড়ি মন্ত্রিসভা হয়ে পার্লামেন্টে নিয়ে যেতে পারব।’

ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের আহবায়ক রেজওয়ানুল হক রাজার সভাপতিত্বে ও মহাসচিব শাকিল আহমেদের সঞ্চালনায় পিআইবির মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের বিএফইউজে) প্রেসিডেন্ট মোল্লা জালাল, একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল হক বাবু, ডিবিসি চ্যানেলের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, মুন্নী সাহা, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী প্রমুখ আলোচনায় অংশ নেন।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী গণমাধ্যমের মালিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনাদের বলব, সাংবাদিকদের বঞ্চিত করবেন না। সময়মতো বেতন পরিশোধ করবেন। কারণ গণমাধ্যমকর্মীরা অনেক কষ্টে কাজ করেন। তারা যদি সবাই কর্মবিরতি করে, তাহলে চ্যানেল চলবে না। সেটি তারা করছে না, এজন্য তাদের ধন্যবাদ। যে খেয়ে না খেয়ে, তিনমাস বেতন না পেয়ে তারা কাজ করছে। তাদের এ দরদ সবার অনুধাবন করা প্রয়োজন। যাতে অহেতুক কারো চাকরচ্যুতি না ঘটে।

ড. হাছান বলেন, ‘আপনারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিশ্চয়ই সাধুবাদ দেবেন কারণ তার হাত ধরেই এই প্রাইভেট টেলিভিশনের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৯৬ সালে তিনি যখন সরকার গঠন করেন তখনই তিনি প্রথম প্রাইভেট টেলিভিশন চ্যানেলের লাইসেন্স দেন। সম্প্রচার মাধ্যম অর্থাৎ ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া বাংলাদেশে গত ১১ বছরে তিন গুনের চেয়ে বেশি বেড়েছে। ২০০৯ সালে যখন প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয়বার ক্ষমতা নেন, তখন বাংলাদেশে টেলিভিশন চ্যানেলের সংখ্যা ছিল ১০টি। এখন টেলিভিশনের সংখ্যা সম্প্রচারে আছে প্রায় ৩৪টি, আমরা লাইসেন্স দিয়েছি ৪৫টিকে। অর্থাৎ আরো কিছু সম্প্রচারে আসবে। আমি মন্ত্রণালয়ে যে সমস্যাগুলো উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছি সেগুলো সমাধানের জন্য প্রথম থেকেই চেষ্টা করেছি। দীর্ঘদিনের পূঞ্জিভুত সমস্যা হঠাৎ করে সমাধান করে দেয়া যায় না, একটু সময় প্রয়োজন।’


ঢাকা/নঈমুদ্দীন/সাইফ


   



আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

৫৮ পদক নিয়ে পঞ্চম স্থানে বাংলাদেশ

২০১৯-১২-০৬ ১২:৫২:২৮ এএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চোলাই মদসহ আটক ৮

২০১৯-১২-০৬ ১২:২৭:২৪ এএম

নাটোরে টমেটোর ঝুড়িতে ফেন্সিডিল

২০১৯-১২-০৬ ১২:০৬:২৪ এএম

প্রেমের কারণে বন্ধুকে খুন!

২০১৯-১২-০৫ ১০:৩১:২৭ পিএম

তুই কি আমার হবি রে?

২০১৯-১২-০৫ ১০:০৯:১৭ পিএম