নিজস্ব গাড়ি নেই, রেন্ট-এ-কারই ভরসা

প্রকাশ: ২০২০-০৫-২২ ১১:০৩:৩৬ পিএম
হাসিবুল ইসলাম | রাইজিংবিডি.কম

সরকারিভাবে গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও ব্যক্তিগত গাড়ি রাস্তায় চলাচলের সুযোগ থাকায় ঈদে ঘরমুখো মানুষের আগ্রহ বেড়েছে এই রেন্ট এ কারের প্রতি। যাদের নিজস্ব গাড়ি নেই তারা এখন রেন্ট-এ-কারের গাড়িতেই ভরসা করছেন।

আর এমন সংবাদের পর রাজধানীর বিভিন্ন স্থানের রেন্ট-এ-কার ব্যবসায়ীরা অফিস খোলা শুরু করেছেন। অনেকে মোবাইল ফোনে কথা বলেই গাড়ি ভাড়ার বিষয়টি চূড়ান্ত করছেন।

রেন্ট-এ কারে বাড়ি ফেরা নিয়ে কথা হয় ধানমন্ডি জিগাতলার বাসিন্দা মোহাম্মদ জুবায়ের হোসেন ও মোহাম্মদপুরের রিয়াদুল ইসলামের সঙ্গে। তারা বলেন, ‘করোনার কারণে প্রথমে শুনেছিলাম এক জেলা থেকে অন্য জেলায় ঈদের সময় মানুষ যাতায়াত করতে পারবে না। তবে এখন শুনছি, ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করতে পারবে। নিজের গাড়ি নেই, তাই রেন্ট-এ-কার এর গাড়িই ভরসা।’

রেন্ট-এ-কার ব্যবসায়ীরা বলছেন, গণপরিবহন বন্ধ। তাই রেন্ট-এ-কারের গাড়ির চাহিদা বেড়েছে। ঘরমুখো মানুষের একমাত্র ভরসা এখন এই রেন্ট-এর কারের গাড়ি।

ঘরমুখো মানুষের গাড়ির চাহিদা নিয়ে কথা হয় রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকার রেন্ট-এ-কার ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও আজিমপুর এলাকার ব্যবসায়ী রুহুল আমিন হাওলাদারের সঙ্গে।

তারা বলেন, ‘অনেকেই গাড়ি ভাড়ার জন্য কল দিচ্ছেন। অফিস খুলিনি। তাই মোবাইলফোনের মাধ্যমেই বুকিং নিচ্ছি।’

ভাড়ার প্রসঙ্গে তারা বলেন, ‘স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় এখন একটু বেশি। কারণ, ড্রাইভার পাওয়া যাচ্ছে না এখন। করোনার ভয়ে অনেকেই গাড়ি চালাতে চান না। আবার ঢাকার বাইরে গাড়ি গেলে তখন আপডাউনের ভাড়া নিতে হয়। এতে ভাড়া একটু বেশি পড়ে।’

জানতে চাইলে রেন্ট-এ-কারে ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম শাখার উপ-কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন। তবে তিনি বলেন, ‘নিজস্ব পরিবহনে যাতায়াতের ক্ষেত্রেও স্বাস্থ্যবিধি যেন যথাযথভাবে পালন করা হয়, সেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

 

ঢাকা/সনি


     




আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

জেদ্দায় আবারও কারফিউ

২০২০-০৬-০৫ ৮:৪০:৩৬ পিএম