ওয়ালটন ফ্রিজের ব্র্যান্ডিং অ্যাওয়ার্ড পেলো ৩৭ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২১ ১১:০৭:৪৯ এএম
এম মাহফুজুর রহমান | রাইজিংবিডি.কম

ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন ফোর-এ ব্যাপক প্রচার-প্রচারণার জন্য ১৯টি বিক্রয় প্রতিষ্ঠান এবং ১৮ জন বিক্রয় প্রতিনিধি ও কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত করে ওয়ালটন। ছবি: সৈয়দ রাজীব

এম মাহফুজুর রহমান: ফ্রিজ বিক্রিতে অভাবনীয় সাফল্য দেখাচ্ছে দেশের শীর্ষ ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড ওয়ালটন। চলতি বছরের প্রথম ৬ মাসে (জানুয়ারি থেকে জুন) দেশের বাজারে ১৩ লাখ ইউনিট রেফ্রিজারেটর এবং ফ্রিজার বিক্রি করেছে প্রতিষ্ঠানটি। বিক্রয় বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদান রেখেছে দেশব্যাপী চলমান ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন ফোর-এর আওতায় দেয়া বিভিন্ন সুবিধা।

এই ক্যাম্পেইনে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে বিক্রয় বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদান রাখায় ১৯টি বিক্রয় প্রতিষ্ঠান এবং ১৮ জন বিক্রয় প্রতিনিধি ও কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত করেছে কর্তৃপক্ষ।

শনিবার বিকেলে (২০ জুলাই, ২০১৯) রাজধানীতে ওয়ালটন গ্রুপের করপোরেট অফিসে আয়োজিত ‘১৯ এ ২০: ডিজিটাল ক্যাম্পেইন অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড মে-জুন ২০১৯’ অনুষ্ঠানে পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে ক্রেস্ট ও সনদ তুলে দেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এমদাদুল হক সরকার, নজরুল ইসলাম সরকার, এস এম জাহিদ হাসান, মোহাম্মদ রায়হান, আরিফুল আম্বিয়া, ড. সাখাওয়াত হোসেন, আমিন খান এবং ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ফিরোজ আলম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, অনলাইনে দ্রুত বিক্রয়োত্তর সেবা নিশ্চিত করতে সারা দেশে এই ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে ওয়ালটন। রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ক্রেতার নাম, ফোন নম্বর এবং ক্রয়কৃত পণ্যের মডেল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য ওয়ালটনের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। এর ফলে ওয়ারেন্টি কার্ড হারিয়ে গেলেও দেশের যেকোনো ওয়ালটন সার্ভিস সেন্টার থেকে দ্রুত কাঙ্খিত সেবা মিলবে। রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমে ক্রেতাদের অংশগ্রহণ বাড়ানোর লক্ষ্যে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

জানা গেছে, আসছে ঈদুল আযহা উপলক্ষে ফ্রিজ ক্রেতাদের মিলিয়নিয়ার হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে ওয়ালটন। ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় ওয়ালটন রেফ্রিজারেটর বা ডিপ ফ্রিজ কিনে রেজিস্ট্রেশন করলেই প্রতিদিনই পেতে পারেন এক মিলিয়ন বা ১০ লাখ টাকা। এছাড়াও থাকছে কোটি কোটি টাকার নিশ্চিত ক্যাশ ভাউচারসহ হাজার হাজার ফ্রি পণ্য।

 

উল্লেখ্য, ওয়ালটনের চলমান মিলিয়নিয়ার অফারের আওতায় এ পর্যন্ত ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হয়েছেন চারজন। তারা হলেন- পিরোজপুরের কামারকাঠী গ্রামের আব্দুর রহিম, চাঁদপুরের মসজিদের ইমাম মোহাম্মদ জাকির, কুমিল্লার রাজমিস্ত্রি নাজমুল হাসান ও ফেনীর কাঠমিস্ত্রি মোহাম্মদ ইয়াছিন।

ওয়ালটন ফ্রিজের ব্র্যান্ডিং অ্যাওয়ার্ড পেলেন যারা

গত মে মাসে ওয়ালটন ফ্রিজ ব্র্যান্ডিং ও বিক্রয়ে অসামান্য অবদান রাখায় ২টি প্লাজা ও ৭টি পরিবেশক প্রতিষ্ঠানকে এবং ৯জন ব্যক্তিকে পুরস্কৃত করে ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে গত জুন মাসে অসামান্য অবদান রাখায় পুরস্কার পায় আরো ৩টি প্লাজা ও ৭ পরিবেশক প্রতিষ্ঠান এবং ৯ জন ব্যক্তি।

মে মাসের পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- ওয়ালটন প্লাজা বিরামপুর (দিনাজপুর), ওয়ালটন প্লাজা নিতাইগঞ্জ (পঞ্চবটি ও পাগলা), টঙ্গীর আনাস ইলেকট্রনিক্স, টাঙ্গাইলের তোয়া ইলেকট্রনিক্স, ভালুকার বন্ধন ইলেকট্রনিক্স, আশুলিয়ার এম আর ইলেকট্রনিক্স, গাজীপুরের শিমুলতলির এইচ আর ইলেকট্রনিক্স, নারায়ণগঞ্জের হোম কেয়ার ইলেকট্রনিক্স এবং মিরপুরের সুইট ইলেকট্রনিক্স।

মে মাসের পুরস্কারপ্রাপ্ত এরিয়া ম্যানেজার হলেন- মওদুদ পারভেজ মামুন (গাজীপুর), রফিকুল ইসলাম হাওলাদার (টাঙ্গাইল), সালাহ আহমেদ (বিরামপুর), হারুন-অর-রশিদ (ময়মনসিংহ), মাসুদ সোহেল (আশুলিয়া), মিজানুর রহমান (গাজীপুর), মেহেদী হাসান (নারায়ণগঞ্জ), মাসুদ সোহেল (মিরপুর, ঢাকা), কাজী আরিফ হোসেন (নিতাইগঞ্জ, পঞ্চবটি, পাগলা)।

জুন মাসের পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- ওয়ালটন প্লাজা ইপিজেড, ওয়ালটন প্লাজা নেভিগেট (চট্টগ্রাম ওয়েস্ট জোন), ওয়ালটন প্লাজা, পীরগঞ্জ; চন্দনার ফিউচার শপ, কিশোরগঞ্জের ইউনিটি ইলেকট্রনিক্স, ঢাকা উদ্যানের দোয়েল এন্টারপ্রাইজ, টঙ্গীর স্টার ইলেকট্রনিক্স, উত্তরা জোনের তালুকদার ইলেকট্রনিক্স ও সম্রাট ইলেকট্রনিক্স এবং চাঁদপুরের রহিমনগরের এল এস ইলেকট্রনিক্স গ্যালারি।

জুন মাসের পুরস্কারপ্রাপ্ত এরিয়া ম্যানেজার হলেন- মিজানুর রহমান (গাজীপুর), আমানুল কবির (কিশোরগঞ্জ), সোহেল রানা (ঢাকা উদ্যান), হারুন-অর-রশিদ (ময়মনসিংহ), মওদুদ পারভেজ মামুন (টঙ্গী, গাজীপুর), মওদুদ পারভেজ মামুন (উত্তরা জোন), জাহিদ হাসান (চাঁদপুর), সালাহ আহমেদ (ঠাকুরগাঁও) এবং ইমরোজ হায়দার খান (চট্টগ্রাম পশ্চিম জোন)।

মে মাসের ফ্রিজ ডেলিভারি গ্রোথের ওপর ভিত্তি করে বেস্ট এরিয়া ম্যানেজার হন- ওয়ালটন ডিস্ট্রিবিউটর নেটওয়ার্কের মিজানুর রহমান (যশোর), হাসানুজ্জামান (পাবনা), আসাদুজ্জামান (সিলেট), সুব্রত দাস (বরিশাল), মোহাম্মদ ইসমাঈল (ঢাকা পশ্চিম), জাহিদ হাসান  নোয়াখালী), অজিত কুমার দাস (কুষ্টিয়া), মামুন আহমেদ (কুমিল্লা), তারেকুল হক (চট্টগ্রাম), নূরুল আমিন (ঢাকা উত্তর) এবং শাখাওয়াত হোসাইন (কক্সবাজার)। অন্যদিকে জুন মাসের ফ্রিজ ডেলিভারি গ্রোথের ওপর ভিত্তি করে বেস্ট এরিয়া ম্যানেজার হন এনামুল কবির (কিশোরগঞ্জ), বিজয় কুমার নাথ (ফরিদপুর), জাহিদ হাসান  (নোয়াখালী), শফিক হায়দার (বরিশাল), আহমেদ কাওসার (ফেনী), হারুন-অর-রশিদ (ময়মনসিংহ), মামুন আহমেদ (কুমিল্লা), রেদওয়ানুর রহমান চৌধুরী (জামালপুর), মিজানুর রহমান (যশোর) এবং আসাদুজ্জামান (সিলেট)।

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ জুলাই ২০১৯/এম মাহফুজুর রহমান/হাকিম মাহি

     


Walton AC

আজকের সর্বশেষ সংবাদ সমূহঃ

মওদুদের বিরুদ্ধে মামলা চলবে

২০১৯-০৮-২৫ ১১:২৪:৪১ এএম

মাহি বি চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদ

২০১৯-০৮-২৫ ১১:০২:৫৪ এএম

ডেঙ্গু জ্বরে গৃহবধূর মৃত্যু

২০১৯-০৮-২৫ ১০:৩৮:৩৮ এএম

গ্যাস নিয়ে দিন-রাত কানামাছি

২০১৯-০৮-২৫ ৯:২৩:০২ এএম

টিভিতে আজকের খেলা

২০১৯-০৮-২৫ ৮:৩৭:৫৯ এএম

পাঁচ বছর পর জেনেলিয়া

২০১৯-০৮-২৫ ৮:২৯:৪৯ এএম